Breaking News

বিদেশ থেকেই ১৫ দিনের মধ্যে প্রবাসীরা অনলাইনে জন্মনিবন্ধন করবেন যেভাবে

যারা আগেই প্রবাসে গিয়েছেন তাদের বিভিন্ন কারণে জন্মসনদের দরকার প’ড়ে। সেক্ষেত্রে এখন থেকে তারা প্রবাসে থেকেই নিজের জন্মনিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে বাংলাদেশ সরকারের জন্মনিবন্ধন প্রকল্পের ওয়েবসাইটে bdris.gov.bd প্রবেশ করুন। স্মার্টফোন বা কম্পিউটারের ব্রাউজার থেকে লিং’কটি ওপেন করতে পারবেন।

এবার কোন এলাকা থেকে জন্মনিবন্ধন সনদ তু’লতে চান সেটি নির্বাচন করতে হবে। এখানে আপনাকে বাংলাদেশ দূতাবাস নির্বাচন করতে হবে। এরপর কোন দেশের কোন শহর থেকে সনদ সংগ্রহ করবেন সেটি সঠিকভাবে নির্বাচন করুন। এরপর আবেদনকারীকে একটি ফরম দেওয়া হবে। এখানে নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির পরিচিতি অং’শটি ভালোভাবে পূরণ করুন। এই অংশে আবেদনকারীর নামের দুটি অংশ (বাংলা ও ইংরেজি) দু’ভাবেই লিখতে হবে। যদি আবেদনকারী আপনি নিজে হন তাহলে নিজের নাম লিখুন। ইংরেজিতে লেখার সময় অবশ্যই ইংরেজি বড় হাতের অ’ক্ষর ব্যবহার করুন।

এরপর আবেদনকারীর জন্ম তারিখ লিখুন। জন্ম তারিখের পরের দুটি ঘরে শিশুর বাবা-মার কততম সন্তান ও লি’ঙ্গ উল্লেখ করতে হবে। এরপর আপবার জন্মস্থানের নাম লিখুন। এই অংশেআপনার দেশ, বিভাগ, বাংলায় ডাকঘর, ইংরেজিতে ডাকঘর। বাংলায় গ্রাম/ মহল্লা, ইংরেজিতে গ্রাম/ মহল্লা, বাংলায় বাড়ি/ রাস্তা, ইংরেজিতে বাড়ি/ রাস্তা সব কিছুই পূরণ করতে হবে সঠিকভাবে।

এই ঘরগুলো পূরণ করা হলে নিচের ডান দিকে থাকা ‘পরবর্তী’ বাটনটিতে ক্লিক করতে হবে। এরপর আরেকটি ফরম দেখা যাবে। সেই ফরমের প্রথম ঘরে নিবন্ধনকারীর বাবার জন্ম সনদ নম্বর লিখতে হবে। এরপরের দুটি ঘরে নিবন্ধনকারীর বাবার নাম বাংলায় ও ইংরেজিতে বড় অক্ষরে লিখতে হবে। পরের দুটি ঘরে নিবন্ধনকারীর বাবার জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও জাতীয়তা লিখতে হবে। একইভাবে নিবন্ধনকারীর মায়ের তথ্যও পূরণ করতে হবে।

এই ঘরগুলো পূরণ করা হলে নিচের ডান দিকে থাকা ‘পরবর্তী’ বাটনটিতে ক্লি’ক করতে হবে। এখানে আপনার ঠিকানা লিখতে হবে। প্রথমেই ‘আপনি কি নিম্নলিখিত কোন ঠিকানা স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার করতে চান?’ অপশন থেকে কোনোটি নয় বাছাই করলে ঠিকানা দেওয়ার জন্য একটি পৃষ্ঠা চলে আসবে আপনার সামনে। আপনার জন্মস্থানের ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা একই হলে ‘জন্মস্থানের ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা একই’ অপশনটিতে ক্লিক করুন। সেক্ষেত্রে সক্রিয়ভাবে ঠিকানার তথ্যগুলো চলে আসবে। অন্যথায় ঠিকানা আলাদা করে লিখুন।

ঠিকানা লেখার পর পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন। এখানে আবেদনকারী অর্থাৎ আপ’নার তথ্য দিতে হবে। যদি আপনার হয়ে অন্য কেউ করে তাহলে আবেদনকারীর সঙ্গে নিবন্ধনকারীর সম্পর্ক, আবেদনকারীর মোবাইল নম্বর ও ই-মেইল জমা দিতে হবে।সব তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করার পর আপনাকে পুন’রায় তথ্যগুলো দেখানো হবে। আপনার দেওয়া তথ্যগুলো যাচাই করুন। কোনো তথ্য ভুল হলে তা সংশোধন করুন। এরপর সাবমিট বাটনটিতে ক্লিক করুন।

জন্মনিবন্ধন আবেদনটি সঠিকভাবে সাবমিট হলে আপনাকে একটি আবেদন নম্বর দেওয়া হবে। এই নম্বরটি দিয়ে আপনি সহজেই জন্মনিবন্ধনের অবস্থা জানতে পারবেন। ‘আবেদনপত্রটি প্রিন্ট করুন’ বাটনটিতে ক্লিক করে আবেদনপত্রটি প্রিন্ট করে নিন। আবেদন করার ১৫ দিন পর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও প্রিন্ট করা কপিটি নিয়ে নি’র্দিষ্ট কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে হবে। সেখানে কাগজপত্রগুলো জমা দিলেই জন্মনিবন্ধন সনদটি আপনি পেয়ে যাবেন। সঙ্গে আপনাকে পাসপোর্টের ফটোকপিসহ বিভিন্ন কাগজ দেখাতে হতে পারে। এছাড়াও সে দেশে যদি আপনার বাবা-মা স্থায়ী হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে তাদের পাসপোর্টের কপিও সংশ্লিষ্ট দূতাবাসে জমা দিতে হবে।

About qwcuy

Hi I am Michael Baxter I am a professional writer

Check Also

প্রতিদিন কমতে শুরু করেছে বাংলাদেশি টাকায় কাতারি রিয়ালের দাম

আজ কাতারি ১ রিয়ালের বিনিময়ে বাংলাদেশি টাকার রেট ৩০.৪৫ টাকা। মনে রাখবেন, আলজামান এক্সচেঞ্জসহ অন্যান্য …

Leave a Reply